শিরোনাম:

 বাংলাদেশকে মর্ডানার ২৫ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন দেবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র: মিলার

নিজস্ব প্রতিবেদক :  শনিবার দুপুরে টুইটে এ তথ্য জানিয়ে ঢাকায় মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার লিখেছেন, কোভ্যাক্সের সবচেয়ে বড় সরবরাহকারী হিসেবে করোনা মোকাবিলায় বিশ্বজুড়ে টিকার সরবরাহ বাড়ানোর ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্র অঙ্গীকারবদ্ধ।

গত মঙ্গলবার দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনকে লেখা চিঠিতে বাংলাদেশে ভ্যাকসিন পাঠানোর বিষয়ে জানান।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের কাছে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার অতিরিক্ত ৬০ মিলিয়ন ডোজ টিকা রয়েছে। সেটা তারা ব্যবহার না করায় আমরা অ্যাস্ট্রাজেনেকার ২০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন চেয়েছি। চেয়েছি।

যুক্তরাষ্ট্রের কাছে আমরা অকোভ্যাক্সের বাইরেও তাদের কাছ থেকে আমরা ভ্যাকসিন সহযোগিতা চেয়েছি। সেটা হোক অনুদান অথবা ক্রয়, আমরা চাই তারা আমাদের ভ্যাকসিন দিয়ে সহযোগিতা করুক।

তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র ছাড়াও যুক্তরাজ্যে, কানাডা, বেলজিয়াম, ডেনমার্ক, অস্ট্রেলিয়া, জার্মানি ও সুইডেনে অতিরিক্ত ভ্যাকসিন মজুদ থাকায় দেশগুলোকে চিঠি দিয়ে ভ্যাকসিন কর্মসূচি অব্যাহত রাখতে দেশগুলোর সহায়তা চাওয়া হয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গত ১০ থেকে ২০ এপ্রিল চিঠি পাঠলেও দেশগুলো থেকে এখনও কোনো সাড়া পাওয়া জায়নি বলে জানিয়েছেন মোমেন।

তিনি বলেন, যে কোনো একটি বা দুটি উৎস থেকে টিকা পেলে প্রথম ডোজ পাওয়া ব্যক্তিদের দ্বিতীয় ডোজ পেতে সমস্যা হবে না।

ওয়াশিংটনের কূটনৈতিক সূত্র বলছে, বাংলাদেশের করোনার আক্রান্তের হার ও মৃতের সংখ্যা তূলনামুলকভাবে কম থাকায় বাংলাদেশ অগ্রাধিকার তালিকায় না থাকলে এখন দেশটি ভ্যাকসিন পাঠতে চাচ্ছে। এটা আমাদের সম্মিলিত চেস্টার ফসল।

ভ্যাকসিন চেয়ে এর আগে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে মার্কিন রাষ্ট্রদূত রবার্ট মিলারের সঙ্গেও বৈঠক করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। সে সময় মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেছেন, এ জন্য আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি।

কোভ্যাক্সের মাধ্যমে বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার আট দেশের পাশাপাশি এশিয়ার ১৮টি দেশকে নতুন করে ১ কোটি ৬০ লাখ ডোজ টিকা দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে হোয়াইট হাউস। এ ছাড়া বিশ্বের আরও ৩০টি দেশ ও জোটকে যুক্তরাষ্ট্র সরাসরি এক কোটি ৪০ লাখ টিকা দেবে, সেই তালিকায় বাংলাদেশ রয়েছে।