স্মার্টকার্ড নিয়ে জটিলতা না কাটলেও আসছে ৪ কোটি অপ্রাপ্তবয়স্ক ডাটাবেজে

নিউজ ডেস্ক : জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) এবং স্মার্টকার্ড নিয়ে জটিলতা এখনো কাটেনি। অনেকেই ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। স্মার্টকার্ড কার্যক্রমই সঠিকভাবে হবে না; কিন্তু এর মধ্যেই নির্বাচন কমিশন (ইসি) দেশের ১০ থেকে ১৭ বছর বয়সী অপ্রাপ্তবয়স্ক নাগরিকদের অস্থায়ী জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদানের পদক্ষেপ নিচ্ছে।  নয়া দিগন্ত

৪ কোটি অপ্রাপ্তবয়স্ক নাগরিককে ডাটাবেজের আওতায় আনতে যাচ্ছে। ওই কাজসহ এনআইডি প্রকল্পের অবকাঠামো উন্নয়ন নিয়ে প্রকল্প ব্যয় ধরা হয়েছে ২ হাজার ৫৫ কোটি টাকা। আর প্রকল্পের জন্য ২২ জন পরামর্শক নিয়োগের কথা বলা হয়েছে। এছাড়া আউট সোর্সিং জনবলের জন্য ৯.৫৯ কোটি টাকার বিশাল অর্থ ব্যয় করে প্রশিক্ষণ দিতে চাইছে ইসি।

নির্বাচন কমিশনের প্রস্তাবনা থেকে জানা গেছে, ভোটার তালিকা প্রস্তুত ও জাতীয় পরিচিতি সেবা প্রদানে টেকসই অবকাঠামো উন্নয়ন শীর্ষক দুই হাজার ৫৪ কোটি ৭৭ লাখ টাকা ব্যয়ে ৫ বছরের জন্য একটি প্রকল্প প্রস্তাব করেছে পরিকল্পনা কমিশনের কাছে। ওই প্রকল্পের আওতায়ই দেশের ১০ থেকে ১৭ বছর বয়সী অপ্রাপ্তবয়স্ক নাগরিকদের অস্থায়ী জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদানের পরিকল্পনা নিয়েছে।

ইসির এনআইডি বিভাগের যুক্তি হলো, জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন আইন-২০১০ (সংশোধন-২০১৩) অনুযায়ী সব নাগরিকের জন্য জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদানের আইন রয়েছে। ভুল সংশোধনসহ গত দুই বছরে ৯৫ লাখ নতুন ভোটার হয়েছে।

অন্য দিকে প্রকল্পের আওতায় ৪০টি দেশে প্রবাসীদের ভোটার নিবন্ধনের জন্য প্রতি দেশে আড়াই কোটি টাকা হারে ১’শ কোটি টাকা ব্যয় হবে। প্রবাসী ভোটারদের তালিকাভুক্ত করা এবং অপরাধীদের শনাক্তকরণের জন্যই প্রবাসীদের নিবন্ধনের প্রস্তাব করা হয়েছে।

প্রকল্পের ব্যয় বিভাজনের তথ্য থেকে জানা গেছে, প্রকল্পের আওতায় ২২ জন পরামর্শক নিয়োগের প্রস্তাব করা হয়েছে। তিন কোটি ব্লাংক কার্ড ক্রয়, রসোনালাইজেশন, স্ক্যানিং, প্যাকেজিং ও উপজেলাপর্যায়ে প্রেরণের জন্য ১৬৫ টাকা হিসাবে ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৯৫ কোটি টাকা। ৪ কোটি স্মার্টকার্ড বিতরণ ও নাগরিকের বায়োমেট্রিক তথ্য সংগ্রহে ব্যয় হবে ১৫ টাকা দরে ৭৫ কোটি টাকা। প্রকল্পে বিভিন্ন ধরনের মোট ৩২টি যানবাহন আউট সোর্সিংয়ের মাধ্যমে ভাড়া নেয়ায় ব্যয় হবে প্রায় ৩০ কোটি টাকা।

পরিকল্পনা কমিশন বলছে, বিভিন্ন কাজে জরুরি বিধায় প্রাপ্তবয়স্ক নাগরিকের জন্য জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদান প্রকল্পের মূল কাজ হিসেবে বিবেচিত। নতুন নতুন ক্ষেত্র প্রকল্পে অন্তর্ভুক্ত করা হলে প্রকল্পের মূল কাজের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য অর্জন ব্যাহত হতে পারে। দেশের ১০ থেকে ১৭ বছর বয়সী অপ্রাপ্তবয়স্ক নাগরিকদের অস্থায়ী জাতীয় পরিচয়পত্র থাকা বাধ্যতামূলক নয়। তাই এটির প্রয়োজনীয়তা গুরুত্বপূর্ণ নয়।

দেশের ১০ থেকে ১৭ বছর বয়সী অপ্রাপ্তবয়স্ক জনগোষ্ঠীর মধ্যে ১২ থেকে ১৭ বছর পর্যন্ত জনগোষ্ঠী আগামী ৫ বছর প্রাপ্তবয়স্ক জনগোষ্ঠীতে রূপান্তরিত হবে, যা মূলত প্রকল্পের টার্গেট গ্রুপে প্রতি বছর ৬০ লাখ হারে পাঁচ বছরে তিন কোটির মধ্যে অন্তর্ভুক্ত। তাই এই অবস্থায় দেশের ১০ থেকে ১৭ বছর বয়সী অপ্রাপ্তবয়স্ক নাগরিকদের অস্থায়ী জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদান করা হলে দ্বৈত গণনা হবে। প্রকল্পে ছয়জন পরামর্শককে বাদ দেয়া জন্য কমিশন থেকে বলা হয়েছে।