শিরোনাম:

১০ হাজার টাকা ও থ্রি-পিসের বিনিময়ে নবজাতককে বিক্রি, পুনরায় বিক্রি ৬০ হাজার টাকায়

অভাবের সংসার। শখ পূরণের তৌফিক নেই। তাই সন্তান প্রসবের পরপরই ১০ হাজার টাকা ও একটি থ্রি-পিসের বিনিময়ে বিক্রি করে দিল খোদ মা!

অবিশ্বাস্য এই ঘটনাটি ঘটে কক্সবাজারের চকরিয়ায়।

জানা যায়, উপজেলার ডুলাহাজারা ইউনিয়নের মালুমঘাট কাটাখালী এলাকার আব্দুল খালেকের স্ত্রী জান্নাত আরা বেগম ২৬ এপ্রিল সকালে ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে একটি ফুটফুটে সন্তান প্রসব করেন।

পরে মাত্র ১০ হাজার টাকা ও একটি থ্রি-পিসের বিনিময়ে শিশুসন্তানকে বিক্রি করে দেন।

ঘটনা জানাজানি হলে সবাই দোষারোপ করবে তাই ভিন্ন কাহিনী তৈরী করেন জান্নাত। সন্তান চুরি হয়ে গেছে বলে অভিনয় শুরু করেন তিনি।

শুক্রবার রাতে এ বিষয়ে চকরিয়া থানায় একটি অভিযোগও করেন জান্নাত। অভিযোগ পেয়ে পুলিশ তদন্ত করে আসল ঘটনা উদঘাটন করে।

পুলিশের তদন্তে জানা গেছে, ডুলাহাজারা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সন্তান জন্মের পর ওই রাতেই ১০ হাজার টাকা ও একটি থ্রি-পিসের বিনিময়ে স্থানীয় শাহাব উদ্দিনের স্ত্রী মিনু আরার কাছে বেচে দেন মা জান্নাত আরা বেগম। পরে মিনু আরা আবার ওই শিশুকে খুটাখালীর এক ব্যক্তির কাছে ৬০ হাজার টাকায় বিক্রি করেন।

পুলিশকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন ডুলাহাজারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন।

তিনি জানান, শিশুটিকে চুরি করা হয়নি। ১০ হাজার টাকা ও একটি থ্রি-পিসের লোভে মিনু আরার কাছে বিক্রি করে দিয়েছে মা জান্নাত আরা। পরে মিনু আরা শিশুটিকে ৬০ হাজার টাকায় অন্য একজনের কাছে বিক্রি করে দিতে চাইলে কথা কাটাকাটির জেরে মিনু আরার বিরুদ্ধে সন্তান চুরির অভিযোগ করেন জান্নাত আরা।

চকরিয়া থানার ওসি শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের বলেন, শিশুটিকে চুরি করা হয়েছে বলে থানায় অভিযোগ করেছেন মা জান্নাত। এ ঘটনা জানতে পেরে যারা কিনেছিল তারাই নবজাতককে ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের কাছে নিয়ে যায়। চেয়ারম্যান শনিবার বিকেলে শিশুটিকে মায়ের কাছে হস্তান্তর করে।